খাদ্য ও পুষ্টি, গবেষণা, ডায়াবেটিস, ফিটনেস, যৌন স্বাস্থ্য

বহু গুনের সমাহার মাশরুমের উপহার

আমাদের খাদ্য তালিকায়  যে খাবার গুলো থাকে তা দিয়ে রসনা বিলাসের পরিপূর্ণ  আয়োজন  আমরা করে থাকি।  মাশরুম আমাদের জন্য নতুন খাদ্য উপাদান হলেও  এর ব্যবহার বিধি বহু পুরনো । মাশরুমে  এর মধ্যে আমিষ শর্করা , চর্বি , ভিটামিন ও মিনারেলের এমন সমন্বয় আছে যা শরীরের “ইমিউন  সিস্টেমকে “ উন্নত করে । ফলে এই খাবারের গুনাগুন বর্ণনা করাটা অপরিহার্য হয়ে যায় ।  চলুন জেনে নেই কি কি  গুনের সমাহারে আপ্লুত  এই মাশরুম ।

মাশরুমের উপকারিতাঃ 

1)  গর্ভবতী মা ও শিশুরা নিয়মিত খেলে দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা সৃষ্টি করে । শুধুমাত্র রোগে আক্রান্ত বা অসুস্থ মানুষ নয় সাধারন সুস্থ সকল মানুষের জন্যে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানো জরুরি।

2)  মাশরুমে চর্বি ও শর্করা কম থাকায় এবং আঁশ বেশি থাকায় এটি ডায়বেটিস রোগীদের    আদর্শ খাবার ।

3)   আঁশযুক্ত খাবার মানুষের হজম প্রক্রিয়ার জন্যে অপরিহার্য। মাশরুমে আছে শরীরের  কোলেষ্টেরল কমানোর অন্যতম উপাদান ইরিটাডেনিন,লোভাষ্টিন এবং এনটাডেনিন । তাই নিয়মিত খেলে হৃদরোগ ও       উচ্চরক্তচাপ নিরাময় হয় ।

4)  মাশরুমে আছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম , ফসফরাস ও ভিটামিন ডি   যা শিশুদের দাঁত ও হাড় গঠনে অত্যন্ত কার্যকরি ।

5)  মাশরুমে আছে প্রচুর পরিমাণে ফলিক এসিড ও লৌহ । ফলে রক্ত শূন্যতা দূর হয় । মহিলা ও শিশুদের এবং বয়স্ক মানুষের জন্য খুবি উপকারী ।

6)   এছাড়া লিংকজাই-৮ নামক এমাইনো এসিড থাকায় হেপাটাইটিস-বি জণ্ডিসের প্রতিরোধক।

7)   মাশরুমে আছে বেটা-ডি, গ্লুকেন, লাম্পট্রোল, টারপিনওয়েড গ্রুপ বেনজোপাইরিন ট্রাইটারপিন, এডিনোসিন ও ইডুলিন যা ক্যান্সার ও টিউমার প্রতিরোধ করে ।

8)  মাশরুমে ট্রাইটারপিন থাকাতে বর্তমান বিশ্বে এটি এইডস এর প্রতিরোধক হিসেবে কাজ করে ।

9)  মাশরুমে ইলুডিন এম এবং এস থাকাতে আমাশয়ের উপকারী ।

10) মাশরুমে প্রচুর পরিমানে গ্লাইকোজিন থাকাতে শাক্তিবর্ধক হিসেবে কাজ করে । তাই যৌন অক্ষম রোগীদের জন্য এটি একটি শাক্তিবর্ধক ।

11)  মাশরুমে এডিনোসিন থাকায় রক্ত কনিকায় ভারসম্য রক্ষা করে , ফলে এটি ডেঙ্গু জ্বরের প্রধিরোধক হিসেবে কাজ করে ।

12) মাশরুমে স্ফিঙ্গ লিপিড এবং ভিটামিন বি-১২ পাওয়া যায়। তাই হাইপার টে নশন  যাদের বেশি  তাদের  স্নায়ুতন্ত্র ও স্পাইনাল কর্ড সুস্থ রাখে ।

13) মাশরুম খেলে  মেরুদণ্ড দৃঢ় হয় এবং ব্রেইন সুস্থ থাকে ।

14)  মাশরুমে  আছে প্রচুর পরিমাণে এনজাইম , যা হজমে সহায়ক , রুচি বর্ধক ও পেটের পীড়ার নিয়ামক ।

15)  মাশরুমে নিউক্লিক এসিড এবং এন্টি এলার্জেন থাকায় কিডনি রোগ এবং এলার্জি রোগের প্রতিরোধক। নিয়তিম অন্যান্য শাকসবজির পাশাপাশি এটি যেমন আমাদের রোগ প্রতিরোধ করবে তেমনি প্রতিষেধক হিসেবেও কাজ করবে।

Comments

comments

পূর্ববর্তী পোস্ট পরবর্তী পোস্ট

আপনি হয়ত এগুলো পছন্দ করতে পারেন