BL cini
জীবনযাত্রা

চিনি ছাড়াই মিষ্টি হোক জীবন

আচ্ছা কখনো ভেবেছেন কি, এই যে  ঈদের সময় এত সেমাই, শরবত, পায়েশ, মণ্ডা-মিঠাই ইত্যাদি আমরা ইচ্ছামত খেলাম এগুলো চিনি ছাড়া হলে কেমন লাগতো? আবার ধরা যাক রাস্তা-ঘাটে, বাড়িতে-অফিসে সময়ে অসময়ে চা পান করছেন সেটা চিনি ছাড়া হলে কেমন হতো? ভাবতেই পারছেন না তাই না?

আসলে আমাদের প্রতিদিনের জীবনে বিভিন্ন খাবারে চিনির ব্যবহার অপরিহার্য। কিন্তু বিশেষজ্ঞদের মতে আমাদের চিনির পরিবর্তে অন্য কিছু ব্যবহার করা উচিৎ। কেন? চলুন তবে জেনে নেই-

অতিরিক্ত চিনি গ্রহণ করলে যে সমস্যাগুলি আপনার হতে পারেঃ

  • এটি শরীরে মেদ বৃদ্ধি করে।
  • রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।
  • রক্তনালীর উপর চাপ বৃদ্ধি পায়।
  • ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ব্যক্তির জন্য চিনি অত্যন্ত ক্ষতিকর।
  • চিনিজাত দ্রব্য শরীরে যে শক্তির সঞ্চার ঘটায় তা খুবই তাড়াতাড়ি নিঃশেষ হয়ে যায়। ফলে শরীর অল্পতেই দুর্বল হয়ে পড়ে।
  • এটি একটি নেশাজাতীয় দ্রব্যের মত। বিশেষজ্ঞদের মতে এটি কোকেইন থেকে ৮ গুন বেশি শক্তিশালী হয়ে থাকে।
  • অল্প বয়সে চেহারায় বার্ধক্যের ছাপ পড়ে।
  • দাঁতে ক্ষত সৃষ্টি করে।
  • ওজন এবং হৃদরোগের ঝুঁকি বৃদ্ধি করে।
  • খাবার হজমে সমস্যা সৃষ্টি করে।

তাহলে কী করবেন?

ভয় পাওয়ার কিছুই নেই। পৃথিবীতে চিনি একমাত্র মিষ্টান্ন দ্রব্য নয়, এর বেশ কিছু বিকল্প রয়েছে।

চিনির পরিবর্তে আপনি মধু ব্যবহার করতে পারেন। এটি শরীরের জন্য যেমন উপকারী তেমনি খাবার মিষ্টি করতেও সাহায্য করে।

এছাড়া আপনি গুর ব্যবহার করতে পারেন। স্বাদে চিনির মত না হলেও এটি আপনার শরীরের জন্য অত্যন্ত উপকারী।

তাছাড়া বাজারে বিভিন্ন ধরনের সুগার ফ্রি পন্য পাওয়া যায়। এগুলোতে ক্যালরির পরিমাণ কম থাকে এবং তা চিনির পরিবর্তে ব্যবহার করার জন্যই তৈরি।

Save

Save

Comments

comments

পূর্ববর্তী পোস্ট পরবর্তী পোস্ট

আপনি হয়ত এগুলো পছন্দ করতে পারেন